গ্যাস সিলিন্ডারের নীচে বসে ছিল বিশাল কোবরা, তুলতেই ফোঁস করে উঠল, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

বর্তমান যুগ বিজ্ঞানের যুগ। সময়ের সাথে সাথে বিজ্ঞান আরো উন্নত হতে চলেছে। খাবার জীবনে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দৈন’ন্দিন জীবনযাত্রা

সব কিছু শুরু করে বর্তমানে তৃতীয় বিশ্বের দেশ উন্নত প্রযুক্তির প্রয়োগ শুরু হয়ে গিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়া বিজ্ঞানের সবচেয়ে বড় অবদান।

সারা পৃথিবীতে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সব কিছু কাজ করা সম্ভব হচ্ছে। সোশ্যাল মিডিয়া অচল পৃথিবীতে করেছে সচল।

সু’পার হিউ’ম্যান বলে একটা কথা আছে, যেখানে মানুষের মধ্যে অসাধারণ ক্ষমতা চলে আসে। সম্প্রতি ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছিল যে,

এক মানুষ নিজের শরী’রের মধ্যেই সামান্য পরিমাণে বি’দ্যুৎ তৈরি করতে পারেন। এই ভিডিও সারা পৃথিবী জুড়ে তোলপাড় হয়ে গেছিল,

বৈজ্ঞানিকরা তাকে নিয়ে গবেষণা করেছিলেন। মানুষ সবসময় দুঃসাহসিক কাজ করতে ভালোবাসেন। এমনকি পৃথিবীতে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা নিজের প্রা-‘ণ বাজি রেখে

নানারকম দু:সা’হসিক কাজ করে মানুষকে চ’মকে দেন। এর আগে ভাইরাল হয়েছিল এক লাইনের নিজের প্রা’ণ বা-জি রেখে সা-পের সঙ্গে ল’ড়ই করে

হাজার হাজার মানুষের প্রা’ণ বাঁ’চানোর ঘটনা, যা প্রতিটি দর্শককে করে দিয়েছিল মু’গ্ধ। সেই লা’ই’ন্সম্যান নিজে সা-পে-র কা-ম-ড় খেয়েও

হাজার হাজার মানুষকে বাঁ-চা-নোর জন্য নিজের প্রা-ণ ত্যা-গ করতে পর্যন্ত রাজি ছিলেন, কিন্তু শেষ মুহূর্তে ঈ-শ্ব-রের ইচ্ছায় তার প্রা-ণ বেঁ-চে যায়

এবং ট্রেন যাত্রীদের বাঁচাতে তিনি স-ক্ষম হন। তার এই ভিডিও সারা ভারতবর্ষে হয়ে গেছিল ভাইরাল। পুরো দেশ কুর্নিশ জানিয়ে ছিল তাকে।

সাপকে ভয় পায় না এমন মানুষ খুবই কম আছে। বিশেষ করে কোন জায়গায় সাপ দেখা গেলে মানুষ খুবই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।

এক্ষেত্রে বিষহীন সাপ গুলোকেও তারা মেরে ফেলেন, যা খুবই অন্যায়। তবে এই জন্যই সমস্ত জায়গায় রয়েছেন স’র্প রক্ষা কমিটি যারা কোন জায়গায় সা’প দেখা গেলেই

সেখানে উপস্থিত হয় সা’প থেকে রক্ষা করেন তাকে নিরা’পদ জায়গা ছেড়ে দেয় এবং এলাকাবাসীদের আ-ত-ঙ্ক মু’ক্ত করেন।

সম্প্রতি ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একটি বাড়িতে সা’প ঢুকে পড়েছে। সেখানে শোয়ার ঘরের সাথেই রান্নার গ্যাস প্রভৃতি রয়েছে।

সাপটি প্রথমে ঘরে ঢুকে মানুষের ভ’য়ে গ্যাসের সিলিন্ডারের তলায় কুণ্ডলী পাকিয়ে বসেছিল। আরিফ প্রথমেই সাপটিকে খুঁজে বের করেন,

সাপটিকে ধরা হলে সাপটি রা’গের চোটে অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হয়ে ছো-ব-ল মা-র-তে থাকে। আরিফ বলেন আসলে এটি তাদের প্রজননের সময়,

তাই এ সময় তারা যেখানে সেখানে ঢুকে পড়তে পারে এবং মানুষকে দং-শন করতে পারে। তাই এই সময়ে খুবই সাবধানে থাকা উচিত।

এমনকি এই সাপটি আর একটু দেরি হলেই আরিফের গায়ে ছোবল মেরে দিয়েছিল, কিন্তু আরিফ সঠিক সময়ে তার হাত সরিয়ে নিতে সক্ষম হন।

শেষ পর্যন্ত তারা সা-প-টিকে নির্দিষ্ট জায়গায় ছেড়ে দিতে স-ক্ষ-ম হন। ভিডিওটি প্রত্যেকের জন্য অত্যন্ত তথ্য পূর্ণ। ভিডিওটি মির্জা মোহাম্মদ আরিফ

নিজেই তাই অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেল “নাগ-লোক” থেকে পো-স্ট করেছেন। সাপটির সম্পর্কে তিনি নানা তথ্য খুব সুন্দরভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন ভিডিওতে।

ভিডিওতে তাকে কিভাবে যোগাযোগ করতে হবে এবং তার সম্পর্কে সবকিছু তিনি এই ভিডিওতেই বলে দিয়েছেন। কমেন্ট বক্সে প্রতিটি মানুষ তার কাজের প্র-শং-সা করেছেন। তার সাহ-সিকতা দেখে মু-গ্ধ সবাই।

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*